28th, July, 2021, 1:48 pm

নিয়মিত বোন ভগ্নিপতির টাকার দাবি মেটাতে বেসামাল থাকতে হতো মুনিয়াকে

বিশেষ প্রতিবেদন : মোসারাত জাহান মুনিয়ার দেওয়া ম্যাসেজ ও অডিও রেকর্ডের সূত্র ধরে নানা নেপথ্য কাহিনী বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। একের পর এক বেড়িয়ে আসছে থলের বেড়াল। পড়াশুনার নাম করে মুনিয়াকে ঢাকায় পাঠানোর কথা বলা হলেও প্রতিনিয়ত তার থেকেই কাড়ি কাড়ি টাকা খুঁজে বেড়াতো বোন আর ভগ্নিপতি। তাদের চাহিদামাফিক টাকার জোগান দিতে না পারলেই ঝগড়াঝাটি আর নানারকম পারিবারিক ঝামেলার সৃষ্টি হতো। এসব নিয়ে মুনিয়ার যেন অশান্তির শেষ ছিল না।

বোন আর ভগ্নিপতির অব্যাহত টাকার চাপে মুনিয়া মাঝে মধ্যেই বেসামাল হয়ে পড়তেন। কাছের বন্ধু বান্ধবীদের কাছে শেয়ার করে বলতেন, আর কত? সম্রাট জেলে যাওয়ার পর থেকে এমনিতেই নিজে চলতে কষ্ট হচ্ছে। তারপরও বোন আর ভাইয়ার (ভগ্নিপতি) অব্যাহত চাপাচাপিতে অসহ্য হয়ে পড়ছি। টাকা না দিলেই ঝগড়াঝাটি বাধে, অশান্তি আর অশান্তি। রেগেমেগে নিজের বোন নুসরাত জাহানকেও ম্যাসেজ পাঠাতে বাধ্য হয় মুনিয়া। সেখানে লিখেছে : টাকার জন্য এতো চাপাচাপি করলে আমি কী করবো বলো? বড় লোক কাউকে ধরে আবার ব্ল্যাকমেইলিং করা ছাড়া উপায় কী?
ঢাকায় পা দেয়ার পর থেকেই বিভিন্ন পার্টি সূত্রে পরিচিত এ্যারেঞ্জার যুবককে ম্যাসেজ পাঠিয়ে মুনিয়া অনুরোধ করে যে, আমার টাকার দরকার। একটা পার্টির ব্যবস্থা করো। হাতে একদম টাকা নাই। বড় আপুকে টাকা পাঠাতে হবে। হাতে টাকা নাই, চলতে পারছি না। বড় লোক একটাকে ধরতে হবে আবার।
কিন্তু এ্যারেঞ্জার যুবকের জবাব দেয়, আমার কাছে টাকা নেই, বড়লোক একজন খুঁজে দেখো।
এতে ক্ষিপ্ত হয় মুনিয়া। লিখেছেন : তুমিওতো অনেক মজা নিছো আমার সাথে। এখন বলছো নাই। মনে আছে সেই দিনের কথা। কতো আদর করলা আমাকে, অনেক মজা নিছো। আর এখন টাকা দিচ্ছো না। আমাকে টাকা দাও।
……শারুনকে ফোন দিয়েছিলাম, সে অনেক বিজি আছে। ও এখন আর আমাকে টাকা দেয় না। চলতে কষ্ট হচ্ছে আমার… ইত্যাদি।

এসব এসএমএস পর্যবেক্ষণ করেই তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তাদের মনে নতুন করে প্রশ্ন উঠেছে। তবে কী সব জেনে শুনেই শুধু টাকা কামানোর জন্যই নিজের বোনকে ঢাকায় পাঠিয়েছিলেন নুসরাত ও তার স্বামী? কারণ একটা মেয়ে যদি পড়াশুনার জন্যই ঢাকায় অবস্থান করেন তাহলে তো তার কাছেই নিয়মিত বাড়ি থেকে টাকা পয়সা পাঠাতে হয়। কিন্তু মুনিয়ার বেলায় উল্টোচিত্র লক্ষ্য করা গেল। ঢাকায় নানা পার্টি করে এবং বিভিন্ন জনের সঙ্গে একান্তে সময় কাটিয়ে নতুবা ব্ল্যাকমেইলিং করে হলেও টাকা জোগাড় করে বোনের কাছে টাকা পাঠাতে মুনিয়াকে বেসামাল অবস্থায় কাটাতে হতো।

Please share this news ..
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Comments are closed.

     More News Of This Category

follow us on facebook page